বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন

নোটিশ
আমাদের ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম.........
শিরোনাম >>>
বগুড়ায় নূরানী এইচকিউ মডেল মাদ্রাসার তাফসীরুল কুরআন মাহফিল অনুষ্ঠিত আত্মহননঃ  একূল-ওকূল হারাতে হয় প্রাচীর নির্মাণের সৃষ্ঠজটিলতা নিরসনকল্পে গাবতলীর সোন্দাবাড়ী হাইস্কুলে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত বগুড়ার শিবগঞ্জের বাঘমারা দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন সাংবাদিক আতিক রহমান গাবতলীতে অভ্যন্তরীণ আমন ধান-চাল সংগ্রহের উদ্বোধন করলেন রবিন খান রাজধানীর রামপুরায় বাসচাপায় এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু চালক আটক বগুড়া র‌্যাবের অভিযানে ৫৮১ পিস ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ ১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কাহালুতে ১ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী সহ ৫ জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বাতিল কাহালু খাদ্য গুদামে আমন ধান ও চাল সংগ্রহের উদ্বোধন বিএনপি নেতা মতি’র মাগফিরাত কামনায় গাবতলীর সোনারায় ইউনিয়ন বিএনপির দোয়া

প্রস্তুুত ব্যারাক অচিরেই উদ্বোধনের দিনক্ষন নির্ধারণ সোনাতলায় ৬০ ভূমিহীন পরিবার নদীর চরে পাচ্ছে মাথা গোঁজার ঠাঁই

প্রস্তুুত ব্যারাক অচিরেই উদ্বোধনের দিনক্ষন নির্ধারণ সোনাতলায় ৬০ ভূমিহীন পরিবার নদীর চরে পাচ্ছে মাথা গোঁজার ঠাঁই

বদিউদ-জ্জামান মুকুল,ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সোনাতলায় বেশ মনোরোম পরিবেশে নির্মাণ করা হয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ব্যবস্থাপনায় এবং সিভিআরপি প্রকল্পের অধীনে চর সরলিয়ায় ৬০টি ভূমিহীন পরিবারের জন্য ৬০টি ব্যারাক নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। অচিরেই ওই গুচ্ছগ্রামের উদ্বোধনের দিনক্ষন নির্ধারণ করা হবে।
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নের চর সরলিয়ায় বেশ মনোরম পরিবেশে যমুনা নদীর তীরে প্রায় ৩ একর জায়গা জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে গুচ্ছগ্রাম। ভুমি মন্ত্রণালয় ব্যবস্থাপনায় এবং সিভিআরপি প্রকল্পের অধীনে চর সরলিয়ায় গুচ্ছগ্রাম নির্মাণ করতে সরকারের ব্যয় হবে প্রায় ১ কোটি টাকা। চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে ওই গুচ্ছগ্রামের কাজ শুরু হয়। সেখানে ৬০টি অসহায় ভূমিহীন পরিবার বসবাস করবে। প্রতিটি পরিবারের জন্য সরকারের ব্যয় হবে প্রায় দেড় লাখ টাকা। মাছ চাষের জন্য একটি পুকুর খনন করা হয়েছে। প্রতিটি পরিবারের জন্য বরাদ্দ থাকবে ২টি করে ঘর, স্যানেটারী ল্যাট্রিন, বন্ধু চুলা (উন্নত চুলা)। এছাড়াও ৬টি পরিবারের জন্য ১টি করে মোট ১০টি টিউবওয়েল স্থাপন করা হয়েছে। পাশাপাশি থাকছে ফুল ও ফলের গাছের চারা। এছাড়াও ওই ভুমিহীন পরিবারগুলোকে স্বাবলম্বী করতে থাকবে একটি সঞ্চয় সমিতি।
১৩ অক্টোবর  মঙ্গলবার সরজমিনের ওই এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, যমুনা নদীর চরে গুচ্ছগ্রাম স্থাপন করায় ৬০টি ভুমিহীন পরিবার মাথাগোাঁজার ঠাঁই খুঁজে পাবে।
এ বিষয়ে স্থানীয় তেকানীচুকাইনগর ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শামছুল হক মন্ডল জানান, ইতিমধ্যেই গুচ্ছগ্রামের ব্যারাক নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। অচিরেই উদ্বোধনের দিনক্ষন নির্ধারণ করা হবে।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ জিয়াউর রহমান জানান, গুচ্ছগ্রাম সিভিআরপি প্রকল্পের আওতায় বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা চর সরলিয়া যমুনা নদীর চরে গুচ্ছগ্রামটি নির্মিত হয়েছে। এটির কাজ শেষ হলে দেখতে মনে হবে ঢাকা কর্ণফুলি সিটি। স্থানটি বসবাসের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত। এখানে বসবাসকারী লোকজন মুক্ত আলো বাতাসে থাকার সুযোগ পাবে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও গুচ্ছগ্রাম বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি সাদিয়া আফরিন জানান, গুচ্ছগ্রামে বাড়িঘর নির্মাণ হবে খুব সাজানো গোঁছানো। ভুমিহীন শ্রেণীর লোকজন বসবাস করবে খুব সুখ স্বাচ্ছন্দে। গরু-ছাগল, হাঁস মুরগী, মাছ চাষ করে মানুষ স্বাবলম্বী হবে। ভ্রমন পিপাসু লোকজন এলাকাটি ভ্রমন করতে ইচ্ছাপোষন করবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান এড. মিনহাদুজ্জামান লীটন জানান, বর্তমান শেখ হাসিনা সরকারের অবদান, গৃহহীনের বাসস্থান। সরকার এই স্লোগানকে বাস্তবায়ন করতে সারাদেশ ব্যাপী আশ্রয়হীন ভূমিহীন শ্রেণীর লোকজনের মাথা গোঁজার ঠাই করে দিচ্ছে। এছাড়াও তিনি আরও জানান, সরকারের সেই উদ্দেশ্যকে বাস্তবায়ন করতে যমুনা নদীর চরে ভুমিহীন শ্রেণীর মানুষগুলোকে পূনবার্সন করতে গুচ্ছগ্রাম নির্মাণ করা হয়েছে।

শেয়ারকরুন: