বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন

নোটিশ
আমাদের ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম.........
শিরোনাম >>>
বগুড়ায় আবু ত্ব-হা আদনান নিখোঁজের প্রতিবাদে মানববন্ধন আজম খাঁনের স্ত্রী’র সুস্থতা কামনায় গাবতলী উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের দোয়া মাহফিল আন্তনগর লালমনি ও রংপুর ট্রেনের টিকিট সরবরাহ না থাকায় যাত্রীদের বিড়ম্বনা স্বীকার হজ্জ ও ওমরাহ পালন করতে গিয়ে কেউ যেন হয়রানির স্বীকার না হয় সে বিষয়ে জাতীয় সংসদে কথা বললেন–এম পি মোশারফ হোসেন কাহালুতে ৫টি গাঁজার গাছ সহ এক ব্যক্তি আটক মরহুম আজম খানের সহধর্মিনীর সুস্থ্যতা কামনায় গাবতলীতে মহিলা আ’লীগের উদ্যোগে দোয়া অনুষ্ঠিত তিন মাসে কাহালু পৌরবাসীকে চমক দেখাতে শুরু করেছেন মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান নিশিন্দারা ইউনিয়ন বিএনপির উদ্যোগে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ১২বছরে ঈদগা মাঠে’র হিসাব না দেয়ায় গাবতলীতে ইঞ্জিনিয়ার কালামের বিরুদ্ধে ফুসে উঠেছে মুসুল্লীরা মহাস্থান মাংস বাজারে দাম ও ওজনে আপত্তি না থাকলেও পরিবেশ নিয়ে অভিযোগ

ফলোআপ—————— গাবতলীতে দাদন ব্যবসায়ী শামীম হত্যার রহস্য উন্মোচন ॥ অর্থের জন্য বন্ধুকে খুন

ফলোআপ—————— গাবতলীতে দাদন ব্যবসায়ী শামীম হত্যার রহস্য উন্মোচন ॥ অর্থের জন্য বন্ধুকে খুন

সাব্বির হাসান,গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার গাবতলীতে দাদন ব্যবসায়ী শামীম (২৩) হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন হয়েছে। মাত্র ৩দিনের ব্যবধানে এ হত্যার রহস্য উন্মোচন হয়। পূর্ব শত্রুতা ও অর্থের কারণে নিহত শামীমের ঘনিষ্ট বন্ধু গ্রেফতারকৃত পারভেজ প্রামানিক ওরফে হারেছ (২৫) এই হত্যাকান্ডে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে বগুড়ার সিনিয়র চীপ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট গাবতলী আদালতে ১৬৪ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। হারেজসহ ৪বন্ধু মিলে পরিকল্পিতভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে শামীমকে হত্যা করে বিলে কচুরীপানার মধ্যে লুকিয়ে রেখেছিলো। নিহত শামীম হোসেন কুমিল্লা জেলার দায়রা গ্রামের সাহাদত হোসেনের ছেলে।
উল্লেখ্য, মা বিদেশ এবং বাবা ঢাকায় চাকুরী করার কারণে শামীম ছোটবেলা থেকেই বগুড়া গাবতলীর নশিপুর ইউনিয়নের নিজগ্রামে নানা আঃ সামাদের বাড়ীতে বসবাস করতো। সেখানে শামীম তার মামা মহিদুল ইসলামের দাদন ব্যবসার টাকা উত্তোলনের কাজ করতেন। গত ৬নভেম্বর রাত সাড়ে ৮টা থেকে শামীম নিখোঁজ হন। নিখোঁজের পরদিন শামীমের মামা মহীদুল বাদী হয়ে থানায় একটি জিডি করেন। জিডির ৩দিন পর ৯নভেম্বর সকালে নিজগ্রাম থেকে প্রায় ১কিলোমিটার দূরে সোনাকানিয়া দহের আগারীতে জমির কচুরিপানা পরিস্কার করতে গিয়ে স্থানীয় এক কৃষক শামীমের ক্ষতবিক্ষত লাশ দেখতে পান। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা শাহাদত হোসেন বাদী হয়ে ৯ নভেম্বর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিজগ্রামের মোজাফ্ফর আলী আকন্দের ছেলে আতিকুর রহমান (১৭)নামের এক যুবককে ১১নভেম্বর থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে জেলহাজতে প্রেরণ করে। এরপর ১২নভেম্বর নিজগ্রামের মোন্তেজার প্রামানিকের ছেলে পারভেজ প্রামানিক ওরফে হারেছ ও একই গ্রামের বাবলু প্রামানিকের ছেলে আরাফাত হোসেন (২০)কে গ্রেফতার করে বগুড়ার সিনিয়র চীপ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট গাবতলী আদালতে হাজির করলে এদের মধ্যে পারভেজ প্রামানিক ওরফে হারেছ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কথা ১৬৪ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়। এ ব্যাপারে থানার ওসি নুরুজ্জামান বলেন, শামিম হত্যাকান্ডে হারেছসহ ৪জন সরাসরি জড়িত ছিলো। এরা পরিকল্পিতভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে শামীমকে হত্যা করে বিলে কচুরীপানার মধ্যে লুকিয়ে রেখেছিলো। হারেছ  ১২নভেম্বর বিকেলে আদালতে ১৬৪ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে।

শেয়ারকরুন: