সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন

নোটিশ
আমাদের ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম.........
শিরোনাম >>>
গাবতলীতে যুবদল নেতা সোহাগ অসুস্থ্য ॥ টিএমএসএস হাসপাতালে ভর্তি সোহেল সভাপতি, মনিন্দ্র সম্পাদক গাবতলীর সুখানপুকুর ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগের সম্মেলন বগুড়ায় ২৯৭ তম রোভার স্কাউট লিডার ওরিয়েন্টেশন কোর্স’২১ অনুষ্ঠিত গাবতলীর কাগইলে প্রতিন্ধীদের কল্যাণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত গাবতলীর দক্ষিনপাড়া লাংলু তরুণ সংঘ উন্নয়ন ক্লাব উদ্বোধন কাহালুর ডোমরগ্রাম কেন্দ্রীয় বড় জামে মসজিদের ছাদ ঢালাই কাজের উদ্বোধন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুলেল তোড়া দিয়ে শ্রদ্ধা জানালেন নব-গঠিত কেন্দ্রীয় কৃষকদলের নেতৃবৃন্দ ধ্বংসের শেষ ধাপে ঐতিহ্যবাহী তুষভান্ডার জমিদার বাড়ী বগুড়ায় দেড় কেজি গাজা ও চাপাতি সহ গ্রেফতারঃ ১ সোনাতলায় হাইস্কুল মাঠে ফুটবল টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন কামালেরপাড়া একাদশের কাছে বিশুরপাড়া গ্রাম উন্নয়ন সংস্থা ২-১ গোলে পরাজিত

সোনাতলায় পাওনা টাকা চাওয়ায় কাস্তের আঘাতে যুবক আহতঃ আটক ১

সোনাতলায় পাওনা টাকা চাওয়ায় কাস্তের আঘাতে যুবক আহতঃ আটক ১

রিমন আহম্মেদ বিকাশঃ বগুড়ার সোনাতলায় পাওনা টাকা চাওয়ায় প্রতিপক্ষের কাস্তের আঘাতে মিশু নামে এক যুবককে আহত করেছে।

আহত মিশু সোনাতলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ তরিকুল ইসলাম নামে এক যুবককে আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলা বালুয়া ইউনিয়নের কুশারঘোপ গ্রামে। আহত যুবক ওই গ্রামের এমদাদুল হক ভিক্ষুর ভাগিনা এবং তরিকুল একই গ্রামের আশফুল ইসলামের ছেলে।

সরেজমিনে ও আহতের পরিবার সুত্রে জানাযায়, ৭ মে শুক্রবার মৃত মুসতজ্জামান এর ছেলে এমদাদুল হক একই এলাকার আশরাফুল ইসলামের ছেলে তরিকুলের কাছে ১০ কাঠা জমির ধানের খর (কারি) ১১শ টাকায় চুক্তিতে বিক্রি করে। সেই ধান মারাই করার পর তরিকুল ওই কারি বাড়িতে নিয়ে যায়। পরের দিন সকালে এমদাদুলের বাড়িতে এসে কারি কম হয়েছে বলে গালমন্দ করে। বাড়ির লোকজন তাকে বলে এখানে কারি কম হওয়ার কোনে সুযোগ নেই। আমরাতো কারি হিসাব করে বিক্রি করিনাই, চুক্তিতে বিক্রি করেছি আগে কারির টাকা দেন। সেখানে ওই তরিকুল হুমকী প্রদর্শন করে চলে আসেন। ৯ মে রবিবার সকালে মামা এমদাদুল হক ভিক্ষু ও ভাগ্নে মিশু অন্যের বাড়িতে ধান মারাইয়ের কাজে যাওয়ার সময় আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা তরিকুল এমদাদুলকে বলে তুই নাকি আমাকে গালা-গালি করেছিছ। তুই কোনো টাকাই আমার কাছ থেকে পাবিনা, এই বলে এমদাদুলকে মারপিট শুরু করে। পাশে থাকা ভাগিনা মিশু মামাকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তরিকুলের কাছে থাকা কাস্তে দিয়ে মিশুর গলায় ফ্যাস দেয়। এতে মিশু গুরুত্বর আহত হয়। স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাকে সোনাতলা হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়।
এদিকে এ ঘটনায় তরিকুল মিশুকে মারার পর বাঁচার জন্য তার নিজ শয়ন ঘরে লুকিয়ে থাকে, এলাকাবাসী দেখতে পেয়ে ওই বাড়িটি ঘিরে রাখে এবং থানা পুলিশে খবর দেয়। থানা পুলিশ এসে তরিকুলকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নেয়।এ বিষয়ে তরিকুলের বড় ভাই ভুট্র জানান, আমার ছোট ভাই অপরাধ করেছে তার শাস্তি পাক এটা আমি চাই। কিন্তু সেখানে এলাকাবাসী তরিকুলকে অবরুদ্ধ করেছে এটা দুঃখজনক।
এ বিষয়ে সোনাতলা থানা অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম রেজা বলেন,এলাকাবাসী কর্তৃক অবরুদ্ধ রাখা তরিকুলকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নেয়া হয়েছে।এ ব্যাপারে অভিযোগ বা এজাহার পেলে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ারকরুন: