সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন

নোটিশ
আমাদের ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম.........
শিরোনাম >>>
গবিন্দগঞ্জের উজিরেরপাড়া বাইগুনীতে জমি নিয়ে ত্রিমুখী বিরোধ- ঘরের বেড়া ভাংচুর গাবতলীতে ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত সুখানপুকুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত সোনাতলায় পিঁয়াজ চাষ বৃদ্ধি ও পাটবিজ উৎপাদনের লক্ষ্যে কৃষক প্রশিক্ষণ মোশাররফ হোসেন বগুড়ার সোনাতলায় গাজাগুরু তহসেন আলি সহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী আটক নাট্যদিশারি আফসার আহমদ এর স্মরণসভা বগুড়া জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের কমিটি বাতিলের দাবীতে কাহালুতে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত গাবতলীর জামিরবাড়িয়া পাকা সড়কে স্বেচ্ছাশ্রমে মেরামত গাবতলীর ১১জন বিসিএস ক্যাডারে নিয়োগপ্রাপ্ত ডাক্তারগণকে সংবর্ধণা সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বন্ধ ও দোষীদের শাস্তির দাবীতে বগুড়ায় সুজনের মানববন্ধন

সোনাতলায় সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

সোনাতলায় সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

বদিউদ-জ্জামান মুকুল,ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সোনাতলায় ১৩ অক্টোবর বুধবার প্রেস ক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য রাখেন, সোনাতলা পৌর এলাকার আগুনিয়াতাইড় গ্রামের মৃত আব্দুল লতিফ সরকারের পুত্র মাহফুজুল করিম টফি। তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, সম্প্রতি কতিপয় অন লাইন পত্রিকায় তার বাবাকে নিয়ে কুরুচি পূর্ণ মন্তব্য করায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, তার বাবা মৃত আব্দুল লতিফ সরকার অত্র এলাকার সুনামধন্য ও সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে তার বাবা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের একজন সংগঠক ছিলেন। তার চাচা আব্দুল মতিন সরকার স্বাধীনতার পূর্বে সোনাতলা ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও তার বড় ভাই আবু মোহাম্মদ জিয়াউল করিম শ্যাম্পু দীর্ঘ ২৪ বছর যাবত ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্পাদক এবং উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তার বাবা মৃত আব্দুল লতিফ সরকার মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে একজন সাহসিক সংগঠক ছিলেন। তার বাবার নামে আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা করেছেন। তাদের বাসা থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের খাবার ও বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সরবরাহ করেছেন। এজন্য মুক্তিযুদ্ধচলাকালীন সময়ে পাকিস্থানী সেনাবাহিনীর বারবার তাদের বাড়ি তল্লাশী চালায়। অথচ এই রকম একজন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সংগঠক পরিবারকে প্রতিহিংসামূলক একটি মহল তার বাবার নাম রাজাকারের কিংবা স্বাধীনতা বিরোধীদের নামের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এড. মিনহাদুজ্জামান লীটন, পৌর কমিশনার জহুরুল ইসলাম শেফা, বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুল আনোয়ার বাদশা, আবু মোহাম্মদ জিয়াউল করিম শ্যাম্পু, একেএম রেজাউল হক, মকবুল হোসেন, হাবিবুর রহমান, আবুল বাশার, ইউনুছ আলী, মতিয়ার রহমান, অছিম উদ্দিন, আজিজুর রহমান প্রমুখ।

শেয়ারকরুন: