রবিবার, ২০ Jun ২০২১, ১২:৫৯ অপরাহ্ন

নোটিশ
আমাদের ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম.........
শিরোনাম >>>
মহিলা ক্রিকেটদলের অধিনায়ককে গাবতলীতে ফুলেল শুভেচ্ছা আদমদীঘিতে বিলুপ্তীর পথে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ শিল্প কাহালুতে ২য় গর্যায় ৩০ট গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে দূর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডে পদ পেলেন পত্নীতলার রুবাইত হাসান সান্তাহারে ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কাহালু পৌর মেয়রকে সচিবালয়ে প্রবেশের কার্ড করে নিয়ে দিলেন এম পি মোশারফ হোসেন কাহালুতে চোর সন্দেহে যুবককে বাড়ী থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন কাহালুতে ৫ জুয়াড়ী আটক ডাঃ জোবাইদা’র জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গাবতলীতে ছাত্রদলের দোয়া মাহফিল ও খাবার বিতরণ গাবতলীর বাগবাড়ীতে মসজিদ নির্মাণ কাজের উদ্ধোধন করলেন ডাঃ পাভেল

অনলাইন ডেস্কঃ রাজশাহীর প্রায় ২০ হাজার পরিবহন শ্রমিক টানা লকডাউনে আয়শূন্য হয়ে পড়েছে। ফলে খেয়ে না খেয়ে পরিবার নিয়ে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন বলে জানা গেছে।
গণপরিবহণ সংশ্লিষ্টদের ভাষ্য, জমানো টাকা যা ছিল তা দিয়ে লকডাউনের শুরুতে মাত্র কয়েকদিন পার হয়েছে। এখন ধার-দেনা করে কোনো রকম দিন পার করতে হচ্ছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাস মালিক সমিতির কয়েকজন জানান, একটি বাস চললে মালিক ছাড়াও চালক, সুপারভাইজার, কন্ডাক্টর আর হেলপারের প্রয়োজন হয়। তাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ওয়েবিল লেখা কর্মী, চেকার ও সুপারভাইজার।রাজশাহীতে এসব শ্রমিকই রয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার। আর পরিবহনটি ঘিরে পেট চালান কমপক্ষে আরও ১০ ধরনের শ্রমিক।
শুধু তাই নয়, সৌন্দর্যবর্ধন থেকে শুরু করে পরিবহনের ছোট্ট একটি যন্ত্রাংশ মেরামতে যুক্ত রয়েছে আরও কিছু শ্রমিক।গ্রিজ মিস্ত্রি, ওয়েল্ডিং মিস্ত্রি, অটোপার্টেস দোকানি থেকে শুরু করে মেরামতকারীসহ বিভিন্ন ধরনের শ্রমিকরা যুক্ত রয়েছেন পরিবহন খাতে।
রাজশাহী জেলা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য বাসচালক সুমন আহমেদ বলেন,আমরা দিন আনি দিন খাই। জমানো টাকা বলতে কিছু নেই।লকডাউন আরও বাড়লে কী খাব, কী করব, তা ভেবে পাচ্ছি না।
বাসের হেলপার আবির হোসেন বলেনবাস চললেই আমাদের পেট চলে। বাস বন্ধ, আয় রোজগারও বন্ধ। গতবার অনেকেই সাহায্য অনুদান দিয়েছিলেন। এবার কারও কোনো সাড়া নেই।এবার লকডাউনে সবকিছু বন্ধ, বাকি দিনগুলো কীভাবে চলবে আল্লাহই ভালো জানেন।

মহানগরীর শিরোইল বাস টার্মিনাল এলাকার গ্রিজ মিস্ত্রি রাজন বলেন,গাড়ি চললে কাজ পাই। তা দিয়েই চলত সংসার। টানা লকডাউনে গাড়ি বন্ধ। তাই ইনকামও বন্ধ।কীভাবে পরিবারের খাবার যোগাবো সেটা মাথায় আসছে না।
এদিকে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে গণপরিবহন চালুর দাবিতে রোববার (২ মে) সারাদেশে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছেন সড়ক পরিবহন শ্রমিকরা। শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেয়া হয়।
এ বিষয়ে রাজশাহী জেলা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাহাতাব হোসেন চৌধুরী জানান, মোটরশ্রমিকদের অবস্থা বর্ণনা করার মতো নেই। সবমিলে একটা বাজে অবস্থায় দিন পার হচ্ছে।
পরিবহন চালুর পক্ষে সমর্থন জানিয়ে তিনি বলেন, লকডাউনে মার্কেট খোলা। তাহলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবহন চললে সমস্যা কোথায়? স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে মানুষের ভোগান্তি যেমন কমবে, তেমনি শ্রমিকরাও দু’বেলা খাওয়ার টাকাটা জোগাড় করতে পারবে।

শেয়ারকরুন: